Breaking News

বাংলা দ’খলে মরিয়া মোদি, চ্যালেঞ্জ তৃণমূ’লের

ভারতের স্ব’রা’ষ্ট্রমন্ত্রী এবং বিজেপির শীর্ষ নেতা অমিত শাহ’র দু’দিনের সফর নিয়ে পশ্চিমবঙ্গে চলছে নানা আলোচনা।

তৃণমূ’লের জ্যেষ্ঠ নেতা শুভেন্দু অধিকারীকে দলে ভেড়ানো এবং জনসভায় বিপুল সমাগম ঘটানোয় অমিতের সফরকে সফল হিসেবে দেখছে বিজেপি। কিন্তু এসব নিয়ে না ভেবে আবারও ক্ষ’মতা গ্রহণের আশায় তৃণমূ’ল কংগ্রেস।

ঘণ্টার হিসাব ধরলে মমতার বাংলায় ৫০ ঘণ্টার সফর ছিল ভারতীয় জনতা পার্ট বা বিজেপির দ্বিতীয় ক্ষ’মতাধর ব্যক্তি দেশটির স্ব’রা’ষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ’র। কিন্তু এ সফর যে বিজেপিকে আগামী ৫ বছরের জন্য বড়সড় শ’ক্তি যোগাবে তাতে কোনো স’ন্দে’হ নেই।

এক-সময়ের মমতার দুই বিশ্বস্ত স’ঙ্গী মুকুল-শুভেন্দু এখন গেরুয়া শিবিরে। ২০২১ এর ভোটে মমতার বি’রুদ্ধে মূ’লত দুই মুখই রণে বা কৌশলে বিজেপি ব্যবহার করবে।

বাকিটা মানুষের ভোট। আর সেটা গেরুয়া শিবিরের দিকেই ঝুঁকছে বলে দাবি করলেন বিজেপির এই শীর্ষ নেতা। বলেন, জীবনে বহু র‌্যালি করেছি।

কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের এই র‌্যালি জীবনের সেরা। একই স’ঙ্গে বিজেপি ক্ষ’মতায় এলে পশ্চিমবঙ্গকে ‘সোনার বাংলা’ করার ডাক দিলেন অমিত শাহ।

আরো পড়ুন: দিল্লির আন্দোলন থেকে ঘরে ফিরে কৃষকের আত্মহ’ত্যা

তবে বিজেপিকে প্রায় ওপেন চ্যালেঞ্জ দিয়েছে তৃণমূ’ল কংগ্রেস। গত ১০ বছরের মমতার উন্নয়নের সামনে মোদির দল দাঁড়াতেই পারবে না।

তাদের হাতে যতই শুভেন্দু-মুকুল থাকুক না কেন। ২৯৪ আসনের বিধানসভায় ২০১৬ সালে তৃণমূ’ল ২১০ আসন পেয়েছিল।

বিজেপি মাত্র ৩ আসন পেয়ে কোনো রকমে নিজের অস্তিত্ব জানান দিয়েছে বিধানসভায়। সেই বিজেপি ২০১৯ সালের লোকসভায় ১৮ আসনে জয় পেয়ে ২০০ বিধানসভা তৃণমূ’লকে লিড দিয়েছে।

স্বাভাবিকভাবেই হাওয়া বদলের ইঙ্গিত পেয়ে বাংলা দ’খলে সব রকম কৌশল বাস্তবায়নে মরিয়া মোদি-অমিত শাহরা।

আর সেই স’ঙ্গে এক সময়ের মমতার বন্ধু হয়ে থাকা বর্তমানের শ’ত্রুদের কূটকৌশলের মিশ্রণ বেশ চ্যালেঞ্জের মুখেই ফেলতে পারে বাংলার অগ্নিকন্যাকে।

About tanvir

Check Also

ট্রা’ম্প অনুষ্ঠানে আসবে না, ভালো হয়েছে : বাইডেন

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রে’সিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেনের অভিষেক অনুষ্ঠানে না যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন বিদায়ী প্রে’সিডেন্ট ডোনাল্ড …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *