Breaking News

দেশের শান্তিতে যারা খুশি নয়, পার্বত্যাঞ্চলের শান্তিতেও তারা খুশি নয় : ত’থ্যমন্ত্রী

ত’থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘দেশের শান্তি ও উন্নয়নে যারা খুশি নয়, পার্বত্যাঞ্চলের শান্তি, উন্নয়ন, স্থিতিতেও তারা খুশি নয়।

তিনি বলেন, ‘দেশের শান্তি বিন’ষ্টের পাশাপাশি পার্বত্য চট্টগ্রাম এলাকার শান্তি বিন’ষ্ট করতেও ষ’ড়যন্ত্রকারীরা নানা ষ’ড়যন্ত্রে লি’প্ত এবং এর বহিঃপ্রকাশ আমরা মাঝেমধ্যে দেখতে পাই। এবি’ষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।’

ত’থ্যমন্ত্রী আজ রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজে’লার সাজেক ভ্যালিতে বঙ্গবন্ধুর জ’ন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ‘বঙ্গবন্ধু ট্যুর দ্য সিএইচ’টি মাউন্টেইন বাইক’ প্রতিযোগিতার উদ্বোধ’নী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বি’ষয়ক ম’ন্ত্রণালয়ের স’চিব সফিকুল আহম্ম’দের সভাপতিত্বে খাদ্য ম’ন্ত্রণালয় সম্প’র্কিত সং’সদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি, শ’রণার্থী বি’ষয়ক টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি,

বাসন্তী চাকমা এমপি, ব্রিগেড কমান্ডার ফয়েজুর রহমান, দিঘীনালা উপজে’লা চেয়ারম্যান আবুল কাশেম অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন।

ত’থ্যমন্ত্রী বলেন, এখানে পূর্ববর্তী স’রকার বিশেষ করে যখন বিএনপি ও এরশাদ ক্ষ’মতায় ছিল, প্রকৃতপক্ষে তখন শান্তিচুক্তি করা ও বাস্তবায়নের জন্য হাতও দেয়া হয়নি।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা শান্তিচুক্তি করেছেন এবং সেটি বাস্তবায়নও করে চলেছেন। বহু শ’রণার্থী যারা এখানে অশান্তির কারণে দেশত্যাগী হয়েছিল তাদেরকে তিনি ফিরিয়ে এনেছেন।

যারা ভিন্নপথে গিয়েছিল তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসেছেন। এটি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারণেই সম্ভবপর হয়েছে।’

আজকে পুরো পার্বত্য চট্টগ্রাম বদলে গেছে, বাংলাদেশের অন্য এলাকার চেয়ে পার্বত্যাঞ্চলে উন্নয়নের ছোঁয়া প্রকৃতপক্ষে অনেক বেশি উল্লেখ করে চট্টগ্রাম-৭ আসনের এমপি ড. হাছান মাহমুদ বলেন,

‘এর কারণ এখানে স’রকার অধিক মনোযোগী। এর ফলে তিন পার্বত্য জে’লার চিত্র বদলে গেছে।

এখানে মানুষের যে উন্নয়ন হয়েছে এটি সম্ভবপর হওয়ার পেছনে রয়েছে জননেত্রী শেখ হাসিনার পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তি করা ও তার বাস্তবায়নের মাধ্যমে এখানে শান্তি স্থাপন।’

মন্ত্রী বলেন, পার্বত্যাঞ্চলসহ পুরো চট্টগ্রামে পর্যটনের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। এই সাইক্লিং ট্যুরের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রামের নাম এবং এখানকার ট্যুরিজমের সম্ভাবনা সমগ্র বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়বে।

সুপরিকল্পিত ও পরিবেশবান্ধব ব্যবস্থাপনায় দেশে পর্যটন সম্ভাবনা কাজে লাগাতে পারলে দেশ এগিয়ে যাবে।

ক’রোনাভা’ইরাসেের কারণে যখন সব কিছু স্তব্ধপ্রায়, তখন মুজিব শতবর্ষকে স্মরণীয় করে রাখতে মাউন্টেইন বাইকিংয়ের আয়োজনের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম বি’ষয়ক ম’ন্ত্রণালয়কে ধ’ন্যবাদ জানিয়ে ত’থ্যমন্ত্রী বলেন,

অপরূপ শোভায় শোভিত সাজেক ভ্যালিতে সাইক্লিং করার তৃ’প্তি সাইক্লিস্ট ছাড়া অন্য কেউ বলতে পারবেনা।

নিজস্ব অ’ভিজ্ঞতার কথা উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ‘আমি ছাত্রজীবনে নিজেও সাইকেল চা’লিয়ে ইউনিভার্সিটিতে যাওয়া-আসা করতাম। সেকারণে আমি নিজেও সাইক্লিংয়ের ভক্ত, ঢাকা শহরে নানা দাবীতে ও পরিবেশ সংরক্ষণসহ বিভিন্ন সাইকেল র‌্যালিতে আমি নিয়মিত অংশগ্রহণ করি।’

মন্ত্রী বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের আসক্তি ও মা’দকের হিংস্র থাবা থেকে তরুণদের দূরে রাখতে সাইক্লিংসহ ব্যাপক সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া কর্মকান্ড আয়োজনের বিকল্প নেই।

উল্লেখ্য, এ প্রতিযোগিতায় সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১ হাজার ৮০০ ফুট ও’পরের সাজেক থেকে রওনা হয়ে উঁচুনিচু ৩’শ কিলোমিটার পাহাড়ী পথ বেয়ে ৭০০ আবেদনকারী থেকে বেছে নেয়া ৫৫ জন সাইক্লিস্ট থানচি পৌঁছুন।

About tanvir

Check Also

বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লি*ঙ্গের মাদরাসায় নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু

শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস ও আ’নন্দমুখর পরিবেশে বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লি*ঙ্গের মাদারাসায় নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়েছে। গতকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *