Breaking News

খেলাফতের বাংলাদেশ গড়ার ডাক দিলেন ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী

বাংলাদেশকে খেলাফতে দেশ গড়ার ডাক ঘোষণা দিয়েছেন জৈনপুরী দরবারের পীর ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী। তিনি বলেন, ‘আগামীর বাংলাদেশ আল কোরআনের বাংলাদেশ, আগামীর বাংলাদেশ ইসলামের বাংলাদেশ, আগামীর বাংলাদেশ হবে খেলাফতের বাংলাদেশ।

গত (১৮ ফেব্রুয়ারি) সিলেটের কমলগঞ্জে এক মাহফিলে তিনি এ সব কথা বলেন৷

বাংলাদেশে সকল মু’সলমান ঐক্যবদ্ধ থাকার উল্লেখ করে এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী বলেন, মাসশালা যার যার, দ্বীনি ইসলাম সবার। আমার মাসশালা আমার কাছে, তোমার মাসশালা তোমার কাছে। ইসলামের সুমহান মর্যাদা রক্ষার, মু’সলমানদের অধিকার রক্ষায়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সার্বভৌম রক্ষায় সকল মাসশালার মু’সলমান ঐক্যবদ্ধ হয়ে শপথ নেওয়ার সময় এসেছেন৷

তাহরীকে খাতমে নবুওয়্যাতের আমির আল্লামা ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী বলেছেন, দ্বীন হল ইসলাম, দ্বীনের দাওয়াতে আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে যুগে যুগে নবী ও রসূলগণ পৃথিবীতে এসেছেন। সবার পরে এসেছেন আখেরী নাবী ও নাবীকূল সম্রাট মহানবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।

মত প্রকাশের স্বাধীনতা দোহায় দিয়ে হয়রত মোহাম্ম’দ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সান মান নিয়ে বিয়াদবি চলবে না বাংলাদেশে হুশিয়ারি করে তিনি বলেন, মতপ্রকাশের বাউন্ডারি থাকতে হবে বলে,

রাসূল সল্লাল্লাহু ও আল্লাহ’র মান মর্যাদা বি’রুদ্ধে কারো যদি একটু উচ্চার হয় তাকে মু’সলমান বলার সুযোগ থাকে না তারা হয়ে যায় নাস্তিক মুরতাদ। ইসলামি শরীয়ত আইনে তাদের কে মৃ’ত্যুদন্ড ফরজ৷ মত প্রকাশের দোয়ায় দিয়ে রাষ্ট্রের বি’রুদ্ধে কথা বললে রাষ্ট্রদ্রোহিতা হয়ে যদি মৃ’ত্যুদন্ড হয়। নবী’জির সানে যারা আম্মাজান কে নিয়ে যারা বেয়াদবি করছেন তার আগে তাদের মৃ’ত্যুদন্ড দিতে হবে৷

এই দেশে যত বেশি মাদ্রাসা, মসজিদ, মাহফিল হবে ততো বরকতময় বাংলাদেশের হবে বলে মন্তব্য করেন এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী বলেন, ‘ আল্লাহর কোরআনে মাহফিল বেশি হয় বলে ক’রোনার গুজব থেকে এদেশ বেঁচেছেন।

ওয়াজ মাহফিল হচ্ছে বলে ক’রোনার দ্বিতীয় ধাক্কায় একমাত্র আল্লাহর বরকতময় কারণে আমরা রক্ষা পেয়েছি। সেজন্য তিনি জো’রগ’লায় বলেন, সমগ্র বাংলাদেশ মহফিলে অনুমতি দিয়ে দাও, মাদ্রাসা গুলো খুলে দেওয়া হোক, সিনেমা হল গুলো বন্ধ করা হোক। ম’দের দোকান বন্ধ করে দাও, রহমত ও বরকতে বাংলাদেশ আসতে থাকবেন।

আল্লামা ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসীর বায়ানে বলেন, গণস্বাস্থ্য সংস্থার ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহকে তাফসির, সিরাত ও তার লিখিত কিতাব হাদিয়া দিয়েছিলাম। তিনি তওবা পড়ে নূরানী কায়েদার সবক নিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, আমি আমার সঞ্চালক বলেছি, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতাদের সাথে বসবো।

উল্লেখ্য, আগে ফেস দ্যা পিপল নামের একটি ফেসবুক পেজে হওয়া এক টকশোতে অংশ নিয়েছিলেন জৈনপুরের পীর মাওলানা ড. এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী। খেলাফত সম্প’র্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, খিলাফত মানে হচ্ছে আল্লাহর আইন অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনা করা।

আরব বিশ্বের অনেক দেশে যদিও রাজতন্ত্র কিন্তু এখনো খেলাফাত রয়েছে। যেমন চু’রির শা’স্তি হাত কা’টা। ব্যভিচারের শা’স্তি ছঙ্গেছার। আগে খিলাফাত কাকে বলে তা বুঝতে হবে।

About tanvir

Check Also

ভিজিটিং কার্ডের মাধ্যমে দে’হ ব্য’বসা,ক’চি মে’য়ে আছে

যে দেশের মানুষ শতকরা ৯০ ভাগ মু’সলমান সেখানে নাকি ভিজিটিং কার্ডের মাধ্যমে দে’হ ব্যবসা করছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *