Breaking News

হ’স্তমৈ’থুন করলে যে সব মা’রাত্বক স’মস্যা হতে পারে..!

হ’স্তমৈ’থুন এমন এক স’মস্যা যাতে একবার কেউ আসক্ত হয়ে পড়লে তা ট্রিটমেন্ট ছাড়া এ থেকে রেহাই পাওয়ার অন্য কোনো কার্যকর উপায় থাকে না বললেই চলে।

আপনি অনলাইন সার্চ করলে হ’স্তমৈ’থুন অভ্যাস পরিত্যাগের বি’ষয়ে ভুরি ভুরি উপদেশ বাণী পেয়ে যাবেন। বাস্তব ক্ষেত্রে যার সবগু’লিই অকার্যকর।

তারপরও তাদের উপদেশ বাণীর যেন কোনো শেষ নেই।অনেকেই শীতপ্রধান দেশের বিশেষজ্ঞদের গবে’ষণালব্ধ ফলাফল আমাদের উপমহাদেশের অর্থাৎ গ্রীষ্মপ্রধান দেশের বেলায় চালাতে চান।

এক্ষেত্রে অবশ্যই আমাদের বাস্তবতা উপলগ্ধি করতে হবে। আমাদের দেশের ছেলেদের ১০-১২ বছরের মধ্যেই যৌ’ন পরিপক্কতা চলে আসার কারণে তারা অনেকেই তখন

তাছাড়া তারা যে কারো সাথে মেলামেশার সুযোগ পেয়ে থাকার কারণে হ’স্তমৈ’থুন ততটা করে না। তাই তারা এর জন্য ক্ষ’তির সম্মুখীন হয় না বললেই চলে।

তাই আপনাদের অবশ্যই এ বি’ষয়টা বুঝতে হবে এবং তাদের ক্ষেত্রে যে থিওরি তাদের দেশের বিশেষজ্ঞরা দিয়ে থাকেন তা আমাদের দেশের ছেলেদের ক্ষেত্রে প্রয়োগ

করার চেষ্টা করা নিছক বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়। কারণ তারা যদি আমাদের দেশের ছেলেদের মত হ’স্তমৈ’থুনে আসক্ত হয়ে এটা করতে থাকত তাহলে তারাও এর কুফল গু’লির সম্মুখীন হত।

পুরু’ষ হ’স্তমৈ’থুন করলে প্রধান যেসব স’মস্যায় ভুগতে পারে সেগু’লি হলো :-১। পুরু’ষ হ’স্তমৈ’থুন করতে থাকলে সে ধীরে ধীরে নপুংসক হয়ে যায়। অর্থাৎ যৌ’ন সংগম স্থাপন করতে অ’ক্ষম হয়ে যায়।

২। আরেকটি স’মস্যা হল অকাল বী’র্যপাত। ফলে স্বা’মী তার স্ত্রী’কে সন্তুষ্ট করতে অ’ক্ষম হয় । বৈবাহিক সম্প’র্ক বেশিদিন স্থায়ী হয় না ৩। অকাল বী’র্যপাত হলে বী’র্যে শুক্রাণুর সংখ্যা কমে যায় ।

তখন বী’র্যে শুক্রাণুর সংখ্যা হয় ২০ মিলিয়নের কম । যার ফলে স’ন্তান জ’ন্ম’দানে ব্য’র্থতার দেখা দেয় । (যে বী’র্য বের হয় সে বী’র্যে শুক্রাণুর সংখ্যা হয় ৪২ কোটির মত।

স্বা’স্থ্যবিজ্ঞান মতে কোন পুরু’ষের থেকে যদি ২০ কোটির কম শুক্রাণু বের হয় তাহলে সে পুরু’ষ থেকে কোন স’ন্তান হয়না। ৪। অতিরিক্ত হ’স্তমৈ’থুন পুরু’ষের যৌ’না’ঙ্গকে দু’র্বল করে দেয়।

হ’স্তমৈ’থুনের ফলে শ’রীরের অন্যান্য যেসব ক্ষ’তি হয় :-
হ’স্তমৈ’থুনের ফলে পুরো শ’রীর দু’র্বল হয়ে যায় এবং শ’রীর রো’গ – বালাইয়ের যাদুঘর হয়ে যায় । মাথা ব্য’থা হয় ইত্যাদি আরো অনেক স’মস্যা হয় হ’স্তমৈ’থুনের কারণে। স্মরণ শ’ক্তি কমে যায় এবং চোখেরও ক্ষ’তি হয় ।

আরেকটি স’মস্যা হল সামান্য উ’ত্তেজনায় যৌ’না’ঙ্গ থেকে তরল পদার্থ বের হওয়া যাকে বলা হয় Leakage of semen । ফলে অনেক মু’সলিম ভাই নামায পড়তে ক’ষ্ট হয়। তাই এই স’মস্যায় আ’ক্রান্ত হলে অভিজ্ঞ কোনো হোমিও ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করে ট্রিটমেন্ট নিন। দেখবেন অল্প কিছু দিনের চিকিত্সায় মন থেকে হ’স্তমৈ’থুনের আসক্তি দূর হয়ে আপনি চিরদিনের মত সুস্থ্য হয়ে উঠবেন।

About tanvir

Check Also

ভিজিটিং কার্ডের মাধ্যমে দে’হ ব্য’বসা,ক’চি মে’য়ে আছে

যে দেশের মানুষ শতকরা ৯০ ভাগ মু’সলমান সেখানে নাকি ভিজিটিং কার্ডের মাধ্যমে দে’হ ব্যবসা করছে। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *