Breaking News

‘আমার শো’কজের কথা শুনলে জিয়াউর রহমান কবর থেকেও লজ্জা পাবেন’

কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়া বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, নোটিশে তিনি হতবাক হয়েছেন।

দলের ভাইস চেয়ারম্যানকে ‘ভু’ল ত’থ্য’ দিয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাস’চিব রুহুল কবির রিজভী প্রটোকল ও সৌজন্যের ব্যত্যয় ঘটিয়েছেন বলেও মনে করেন হাফিজ উদ্দিন।

শনিবার (১৯ ডিসেম্বর) রাজধানীর বনানীর নিজ বাসভবনে সংবাদ সম্মেলনে হাফিজ উদ্দিন আহমেদ এসব কথা বলেন।

এই কারণ দর্শানোর ঘ’টনায় ক্ষু’ব্ধ হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, শুরুতেই আদিষ্ট না হয়ে কীভাবে একজন যুগ্ম-মহাস’চিব দলের ভাইস চেয়ারম্যানকে আ’ক্রমণাত্মক ভাষায় শো’কজ করেন? বলেন, বি’ষয়টি অ’পমানজনক। হাফিজ বলেন,

জিয়াউর রহমান যদি স্বর্গে গিয়ে থাকেন, আর সেখানে বসে যদি শোনেন মেজর হাফিজকে শো’কজ করা হয়েছে, তিনিও লজ্জা পাবেন।

মেজর (অব.) হাফিজ বলেন, ‘আমি একজন যু’দ্ধাহত, খেতাবপ্রা’প্ত মুক্তিযোদ্ধা। বিজয়ের মাসে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে অসৌজন্যমূ’লক ভাষায় অসত্য অভিযোগসংবলিত কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়ে হতবাক হয়েছি। দলের ভাইস চেয়ারম্যানকে একজন যুগ্ম মহাস’চিব (আদিষ্ট না হয়েও) এমন কঠিন, আ’ক্রমণাত্মক ভাষায় কৈফিয়ত তলব করায় অত্যন্ত অ’পমানিত বোধ করছি। এখানে প্রটোকল ও সৌজন্যের ব্যত্যয় ঘটেছে।’

বিএনপি নেতা হাফিজ বলেন, ‘আমি ২৯ বছর ধরে বিএনপির রাজনীতির স’ঙ্গে সংশ্লিষ্ট, আমার যোগদানের তারিখ, ভাইস চেয়ারম্যান পদে নিয়োগ পাওয়ার তারিখ, আমার নামের বানানসহ অনেক ভু’লই রুহুল কবির রিজভীর স্বাক্ষরিত চিঠিতে দৃশ্যমান।’

এসময় তিনি বলেন, ‘সা’মরিক বাহিনী যেসব বন্ধুর স’ঙ্গে চাকরি-বাকরি করেছি তারা সবাই এবং আমার ব্যক্তিগত বন্ধু যারা রাজনীতি করেন না তারা সবাই আমাকে পদত্যাগের পরামর্শ দিয়েছেন। আমি নিজেও চিন্তা করেছিলাম।

কিন্তু আমার প্রিয় নেতা-কর্মীরা আড়াই’শ মাইল দূর থেকে লঞ্চে-নৌকায় নদী পার হয়ে ঢাকায় এসে অনুরোধ করেছেন- আপনি পদত্যাগ করবেন না, অবসর নেবেন না।

তাদের অনুরোধে আজকে আমি পদত্যাগ করলাম না। আমি দেখতে চাই আমার ব্যাখ্যা তাদের (নেতাদের) কাছে সন্তোষজনক হয় কিনা। তারপর আমি সি’দ্ধান্ত নেব।’

দলের জাতীয় কাউন্সিল আয়োজনের দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপির একজন নগন্য কর্মী হিসেবে কয়েকটি সুপারিশ পেশ করতে চাই। ২০২১ সালের মার্চ মাসের মধ্যেই দলের জাতীয় কাউন্সিল আহ্বান করা হোক।

দলে বিভিন্ন পর্যায়ে কমিটি বাণিজ্য এবং মানোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ উঠে এসেছে। দলের স্থায়ী কমিটির একজন সিনিয়র সদস্যের নেতৃত্বে একটি কমিটির মাধ্যমে বি’ষয়টি ত’দন্ত করে কাউন্সিল সভার রিপোর্ট পেশ করা হোক।

ভবি’ষ্যতে সকল নির্বাচনে দল থেকে একজনকে প্রার্থী এবং একজনকে বিকল্প প্রার্থী রূপে মনোনয়ন দেওয়া হোক। এতে মনোনয়ন বাণিজ্যের সুযোগ কমে যাবে।’

হাফিজ বলেন, ‘দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটি, কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি এবং অ’ঙ্গ সংগঠনের কমিটি সমূহ কাউন্সিলরদের ভোটের মাধ্যমে গঠন করা হোক। সম্প্রতি আমার নির্বাচনী এলাকায় ছাত্রদলের কমিটি কেন্দ্রীয় নেতারা ঢাকায় বসে গঠন করেছেন।

আহবায়ককেই আমি চিনি না। ছাত্রলীগের কর্মীরাও এ কমিটিতে স্থান পেয়েছে। আমার সুপারিশকে বিবেচনা করা হয়নি। ভারপ্রা’প্ত চেয়ারম্যান ও মহাস’চিবকে চিঠি দিয়ে কোনো উত্তর পাইনি। ২৯ বছর সার্ভিস দেওয়ার পর চিঠির একটি উত্তর আশা করতেই পারি।’

‘দলের কারও বি’রুদ্ধে দু’র্নীতির অভিযোগ উত্থাপিত হলে ত’দন্তের পর তাদের বি’রুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক। তাহলেই সৎ, নির্লোভ, মহান নেতা শহীদ জিয়াউর রহমানের আত্মা শান্তি পাবে’— বলেন হাফিজ উদ্দিন আহম’দ।

কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীদের চিন্তা করতে বলি- দেশের জনপ্রিয় দল বিএনপি কেন আজ ক্ষ’মতার বাইরে, কারা এর জন্য দায়ী।

এখনও তো বিএনপি সবচেয়ে জনপ্রিয় দল। ১৯৯৬ সালে লেজে গোবরে হয়ে আমরা ইলেকশনে গিয়েছি। তারপরও ১১৬টা আসন পেয়েছি। প্রত্যেকটা মন্ত্রী পরাজিত হয়েছে। অথচ আমরা এমপিরা বিজয়ী হয়েছি।’

‘সুতরাং চিন্তা করেন, মুক ও বধির না হয়ে চিন্তা করেন। দলকে ভালোর জন্য কনট্রিবিউট করেন। দলকে সাজেশন দেন, কী করা উচিত।

কেবলমাত্র তোষাম’দ করে দায়িত্ব শেষ করবেন না। জিয়াউর রহমানকে অনুসরণ করুন। তার মতো সততার স’ঙ্গে রাজনীতি করুন। যদি অসৎ ব্যক্তিদের বি’রুদ্ধে বিএনপি ব্যবস্থা নেয় মহান নেতা জিয়াউর রহমানের আত্মা কবরেও শান্তি পাবে’— বলেন হাফিজ উদ্দিন আহম’দ।

তিনি বলেন, ‘আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমার নেতা জিয়াউর রহমান বলে গিয়েছেন, দলের চেয়ে দেশ বড়। আমার কাছেও দেশ সবচেয়ে বড়।

মাইন ফিল্ডে কামানের ভ’য়াবহ গোলা বর্ষণ, মেশিন গানের টাটা টাটেট গু’লি, মর্টারের গোলা, কামানের গোলা, ট্যাংক বাহিনী সাড়াশি আ’ক্রমণ এগুলো অতিক্রম করে শ’ত্রুর সাথে হাতাহাতি যু’দ্ধ করেছি আমরা।’

হাফিজ উদ্দিন আহম’দ বলেন, ‘আমার মতো অসংখ্য সৈনিক যাদের অধিকাংশ ছিল স্কুল-কলেজের ছাত্র। আমরা সে’নাবা’হিনীর আর কয়জন ছিলাম। সারাদেশ যু’দ্ধ করেছে। আজকে ৫০ বছর প্রায় পার হয়ে যাচ্ছে। বর্তমান প্রজ’ন্ম দেখেনি কীভাবে আমরা দেশটা স্বাধীন করেছি। সেজন্যই এই শো’কজ নোটিশ আমি পেয়েছি।’

About tanvir

Check Also

বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লি*ঙ্গের মাদরাসায় নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু

শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস ও আ’নন্দমুখর পরিবেশে বাংলাদেশের প্রথম তৃতীয় লি*ঙ্গের মাদারাসায় নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়েছে। গতকাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *